Homeখবরপরাজয় পরাজয়ের সাথে বিডি টি -২০ সিরিজ শুরু করে

পরাজয় পরাজয়ের সাথে বিডি টি -২০ সিরিজ শুরু করে

 

পরাজয় পরাজয়ের সাথে টিডি সিরিজ শুরু বিডি রবিবার হ্যামিল্টনে নিউজিল্যান্ডের ফিন অ্যালেন প্রথম টি-টোয়েন্টি-তে বাংলাদেশের বিপক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেকের সময় প্রথম বলেই পড়েছিলেন। -গিটি

রবিবার হ্যামিল্টনের সিডন পার্কে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি আন্তর্জাতিক সিরিজের ওপেনার নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৬৬ রানের বিশাল পরাজয়ের শিকার হয়ে নিউজিল্যান্ডে দর্শনার্থীদের বাংলাদেশের দুঃস্বপ্নের রেকর্ড অব্যাহত রয়েছে।

নিউজিল্যান্ডের অধিনায়ক টিম সাউদি প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর স্বাগতিকরা ২১০/৩ (২০ ওভার) রান করেছিল। জবাবে বাংলাদেশ ১৪৪/৮ (২০ ওভার) রান করতে পেরেছিল। আবারও নিউজিল্যান্ডের এই সফরে কোনও ব্যাটসম্যান ব্যাট করতে নেমে তারা ভালো শুরু করতে ব্যর্থ হওয়ায়। দর্শকদের নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হেরে যেহেতু তাদের তাড়া করতে নেমে আবার লড়াইয়ের সুযোগ নেই।

ওপেনার মোহাম্মদ নাইম ২৭ রান করেছিলেন এবং পরের তিন ব্যাটসম্যান ডাবল ডিজিটের স্কোরে পৌঁছাতে ব্যর্থ হন। অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহওয়াস মাত্র ১১ রানে আউট হন। বাংলাদেশ যখন ৫৯//-তে লড়াই করে যাচ্ছিল, আফিফ হোসেন এবং মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন কিছুটা সম্মানজনক ছক খেলেন যেহেতু দর্শকরা কমপক্ষে সম্মানজনক মোট অর্জন করতে পেরেছিল।

আফিফ ৩৩ বলে ৪১ রান (৫ টি চার এবং মাত্র একটি সিক্স), সাইফুদ্দিন অপরাজিত ছিলেন ৩৪ রান করে অপরাজিত (৩ টি চার ও একটি সিক্স)। নিউজিল্যান্ডের বোলারদের মধ্যে ইশসো চার উইকেট পেয়েছিলেন কারণ তার বোলিংয়ের ফিগার ছিল। ৪-০-২৮-৪ । এছাড়াও লকিউ ফার্গুসন দুটি উইকেট শিকার করেছেন (৪-০-২৫-২) এবং অধিনায়ক টিম সাউদি (১/৩৪) এবং হামিশ বেনেট (১/২০) একটি করে উইকেট পেয়েছেন।

ডেবিউব্যান্ট বাঁহাতি স্পিনার নাসুম আহমেদ একটি দুর্দান্ত ফ্যাশনে দিন শুরু করেছিলেন সোনার হাঁসের জন্য অভিষেক হওয়া ওপেনার ফিন অ্যালেনকে আউট করে এবং সেও দিনের ষষ্ঠ বলে। তবে মার্টিন গাপটিল এবং ডিভন কনওয়ে দ্বিতীয় উইকেটে ৫২ রানের জুটি গড়েন।

সপ্তম ওভারে নাসুম আহমেদ আরও একটি উইকেট নেন কারণ তিনি অন্য ওপেনার গাপটিলকে ৩৫ রানে আউট করেছিলেন। তবে ইন-ফর্ম কনওয়ে এবং আরও একটি টি-টোয়েন্টি অভিষেক উইল ইয়ং তৃতীয় উইকেটের জন্য ১০৫ রানের জোরাল জুটি গড়ল। কনও তার ৩ বলে অর্ধশতক পূর্ণ করেছিলেন এবং ইয়ং মাত্র ২৮ বলে হাফ সেঞ্চুরি করেছিলেন। তিন ম্যাচের ওয়ানডেতে ম্যান অফ দ্য সিরিজ নির্বাচিত ডিভন কনওয়ে ওয়ানডে ফর্মটি টি-টোয়েন্টি সিরিজে অনুবাদ করেছিলেন, যখন তিনি অপরাজিত ৯২ রানের ইনিংস খেলেন। ৫,, ক্লাববারিং ১১ টি বাউন্ডারি এবং তিনটি ছক্কা খেলে কিউইস বড় মোটের প্ল্যাটফর্মটি স্থাপন করে।

17 তম ওভারে অবশেষে মাহেদী হাসান ৩০ বলের (৫ টি চার ও ৪ ছক্কায়) ৫৩ রানে ইয়ংকে আউট করেছিলেন তবে কনও এবং গ্লেন ফিলিপস অবিচ্ছিন্ন চতুর্থ উইকেটে ৫২ রানের জুটিতে দ্বিতীয় ইনিংসটি শেষ করে। কনও আবারও ৯০ এর দশকে আউট ছিলেন না, কারণ তিনি ৫২ বলে (১১ টি চার এবং তিনটি ছক্কায়) অপরাজিত 92 রান করেছিলেন। এদিকে, ফিলিপস তিনটি বাউন্ডারি এবং মাত্র ছক্কার সাহায্যে মাত্র 10 বলে অপরাজিত 24 রান করেছিলেন। মঙ্গলবার নেপিয়ারে দুই দলের মধ্যে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি রয়েছে।

 

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

Recent Comments