হারিকেন ইডার দক্ষিণ -পূর্ব লুইসিয়ানাতে আঘাত হেনেছে

হেরিকেন ইডা ২০২১ সালের নতুন ঝড় এর নাম। এর উৎপত্তি মেক্সিকো উপসাগরে। হেরিকেন ইডা রবিবার লুইসিয়ানা প্রবেশের পথে এটি ৫টি ক্যাটাগরিতে ভাগ হয়ে একটি হারিকেন ঝড়ে পরিণত হয়।

হারিকেন ইডার কয়েক ঘন্টার মধ্যে দক্ষিণ -পূর্ব লুইসিয়ানাতে আঘাত হানবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে, এজন্য কেন্দ্রটি সন্ধ্যার পরে থেকে সব কিছু সরিয়ে নেয়া হয়েছে। এবং সবাইকে সাবধানে থাকতে বলা হয়েছে।

হেরিকেন ইডা দক্ষিণ-পূর্ব লুইসিয়ানা উপকূলে প্রবেশের সাথে সাথে এটি আরো ভয়ঙ্কর রুপ নিয়েছে , লুইসিয়ানাতে অনেক বড় ক্ষয় ক্ষতির আশঙ্কা রয়েছে।

ন্যাশনাল হেরিকেন অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, রবিবার পর্যন্ত, হেরিকেন ইডা মেক্সিকো উপসাগর অতিক্রম করার সময় বাতাসের গতিবেগ ছিল প্রায় ১৫০ মাইল প্রতি ঘণ্টায়।

হেরিকেন ইডা লুইসিয়ানা, মিসিসিপি এবং আলাবামারতে আঘাত হানার সম্ভাবনা রয়েছে।

হারিকেন ইডা  ৫টি ক্যাটাগরি তে কি ঘটতে পারে জানুনঃ

বিভাগ ১: বাতাস ৭৪ থেকে ৯৫ মাইল (ছোট ক্ষতি)
বিভাগ ২: বাতাস ৯৬ থেকে ১১০ মাইল (ব্যাপক ক্ষতি – গাছ উপড়ে ফেলতে পারে এবং জানালা ভেঙে দিতে পারে)
বিভাগ ৩: বাতাস ১১১ থেকে ১২৯ মাইল (বিধ্বংসী – জানালা এবং দরজা ভেঙে দিতে পারে)
বিভাগ ৪: ১৩০ থেকে ১৫৬ মাইল বাতাস (বিপর্যয়কর ক্ষতি – ছাদ ছিঁড়ে ফেলতে পারে)
বিভাগ ৫: ১৫৭ মাইল বা তার বেশি বাতাস (গরম খারাপ এবং ঘর সমান করে ধ্বংস করতে পারে.

হারিকেন ইডার দক্ষিণ -পূর্ব লুইসিয়ানাতে আঘাত
হারিকেন ইডার দক্ষিণ -পূর্ব লুইসিয়ানাতে আঘাত

আরো আপডেট পেতে আমাদের সাথেই থাকুন।

২,৪০০ ফেমা কর্মী দক্ষিণ -পূর্ব জুড়ে মোতায়েন করা হয়েছে হারিকেনের প্রভাব মোকাবেলায়।

মিসিসিপির জ্যাকসন পাবলিক স্কুল হারিকেন ইডার কারণে স্কুল বাতিল করেছে।

“জ্যাকসন পাবলিক স্কুল জেলার সমস্ত স্কুল, অফিস এবং হারিকেন ইডার ফলে সৃষ্ট ভয়াবহ আবহাওয়ার হুমকির কারণে বিভাগগুলি আগামী ৩০ আগস্ট সোমবার বন্ধ হবে,” স্কুল জেলা ওয়েবসাইটে বলেছে। “সমস্ত বহিরাগত কার্যক্রম এবং অনুশীলনগুলিও বাতিল করা হবে।”

ইডা লুইসিয়ানা উপকূলে বিচ্ছিন্ন থাকায় ৬৫,০০০ এরও বেশি গ্রাহক বিদ্যুৎবিহীন হতে পারে বলে আশংকা।

হারিকেন ইডার দক্ষিণ -পূর্ব লুইসিয়ানাতে আঘাত হেনেছে
হারিকেন ইডার দক্ষিণ -পূর্ব লুইসিয়ানাতে আঘাত হেনেছে

জ্বালানি সরবরাহকারী বলছেন, হারিকেন ইডার কারণে কিছু বাসিন্দা কয়েক সপ্তাহ বিদ্যুৎবিহীন থাকতে পারে।

কোম্পানি সতর্ক করে দিয়েছিল যে ৯০% গ্রাহকরা তাদের সময়মত বিদ্যুৎ পুনরুদ্ধার করতে পারবেন, বন্যা এবং ঝড়ের ক্ষতির কারণে পার্শবর্তী এলাকায় প্রবেশ নিশেধ।

সংস্থাটি বলেছে যে ঝড় কেটে যাওয়ার পরে এটি প্রায় ১৬,০০০ পুনরুদ্ধার কর্মী মোতায়েন করবে বলে আশা করছে। বর্তমানে রাজ্য জুড়ে প্রায় ৭৭,০০০ গ্রাহক বিদ্যুৎবিহীন।