২০৩৩ সালে মজ্ঞল গ্রহে প্রথম পা রাখতে যাচ্ছেন এলিসা

২০৩৩ সালে মজ্ঞল গ্রহে প্রথম পা রাখতে যাচ্ছেন এলিসা। মানুষ মাত্রই স্বপ্ন দেখে, কেউ জীবন গুছিয়ে নিয়ে সামনে এগিয়ে যেতে চাই, আবার কেউবা স্বপ্ন দেখে জীবনে ভিন্ন কিছু করে তাক লাগিয়ে দেওয়ার।

তবে আজ এমন একজনের কথা বলব, যার স্বপ্ন আট দশজনের মত নয়। তিনি একেবারেই ভিন্ন রকমের মানুষ। তিনি হলেন এলিজা কার্সন। তার বয়স মাত্র 19 বছর, তবে এই বয়সেই তিনি পা রাখবেন মঙ্গল গ্রহে।

কবি সুকান্ত চেয়েছিলেন, পৃথিবীর বুকে আঠারো আসুক নেমে। তবে এলিসা চাই, পৃথিবীর বুক থেকে হারিয়ে যেতে। মাত্র 18 বছর বয়সে, তিনি পা রাখবেন মঙ্গলের বুকে।

তিনি পৃথিবীতে নেমে আসার জন্য নয় মঙ্গল গ্রহে হারিয়ে যেতে চাই এলিসা। যদিও মঙ্গলের পথে যাত্রা এখনই শুরু হবে না। তিনি নতুন গ্রহে পদার্পন করবেন 2033 সালে। তখন তার বয়স হবে 32 বছর।

তবে এজন্য তাকে নিতে হয়েছে বেশ কঠিন কিছু শর্ত,

২০৩৩ সালে মজ্ঞল গ্রহে প্রথম পা রাখতে যাচ্ছেন এলিসা
২০৩৩ সালে মজ্ঞল গ্রহে প্রথম পা রাখতে যাচ্ছেন এলিসা

২০৩৩ সালে মজ্ঞল গ্রহে প্রথম পা রাখতে যাচ্ছেন এলিসা তার শর্তগুলো হলো:

(ক) নাসার সাথে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ শর্তগুলো, সে বিয়ে করতে পারবে না।

(খ) কোন প্রকার যৌন সম্পর্ক, কিংবা সন্তান ধারণের কাজ সে করতে পারবে না।

এই বয়সে একটি মেয়েকে এই শর্তগুলো মেনে নেওয়া খুবই কষ্টসাধ্য বিষয়। তবুও মঙ্গল গ্রহে যেতে হলে তাকে এই কঠিন সিদ্ধান্ত গুলো মেনে নিতে হবে।

এলিসা মঙ্গল গ্রহে পা রাখার পরে পৃথিবীতে ফেরা হবে কি? কেউ সেটা বলতে পারেনা। তার আর নাও ফেরা হতে পারে, এই সত্য মেনে নিয়েছেন এলিসা।

নাসার সবচেয়ে ছোট সদস্য এলিসা। নাচাতে মাত্র 18 বছর হওয়ার আগেই কাউকে নহচারী হবার সুযোগ দেয়া হয় না। কিন্তু এলিসা পেয়ে গিয়েছে সেই সুবর্ণ সুযোগ।

নাসা চেয়েছেন, মঙ্গলের বুকে প্রাণীর বসবাস গড়ে তুলতে।

তবে এলিসার, নাসার এই যাত্রার শুরু টাও কিন্তু অন্যরকম। এলিসার বয়স যখন নয়, তখন দেখা হয় নাসার এক কর্মচারী সাথে। নাসার কর্মচারীর নাম ছিল সান্দ্রা ম্যাগনাস। এলিসা সান্দ্রা ম্যাগনাস কে জানান তিনি মহাকাশে যেতে চাই। তখন এলিসার বয়স ছিল নয় বছর।

12 বছর বয়সেই এলিসা সবচেয়ে কম বয়সী হিসেবে আল বামা, কারনার কইবে ও তুরস্কের ইজমিরে নাসার তিনটি ভিন্ন স্পেস ক্যাম্পে অংশ নেয়। মহাকাশ সম্পর্কে তার অগাধ কৌতহলের জন্ম হয়।

মহাকাশ সম্পর্কে সানরাইজ এর সহযোগিতায় তার মনে নতুন একটি স্বপ্ন তৈরি হয়। তার মনে মঙ্গল জয়ের বাসনা সৃষ্টি হয়। তিনিই একমাত্র হবেন, যিনি প্রথমে মঙ্গলে পা রাখবেন। তার চেষ্টায় নিজেকে মঙ্গল গ্রহের একজন সদস্য হিসেবে জড়িয়ে নিয়েছেন।

এলিসা প্রথম মানবীর মঙ্গল গ্রহে পা রাখবেন। সেখানে তিনি 2, 3 বছর ধরে বিভিন্ন এক্সপেরিমেন্ট চালাবেন। খাদ্য উৎপাদন করার চেষ্টা চালাবেন। বৈজ্ঞানিক পরীক্ষা চালানোর কাজ করবেন।

মঙ্গল গ্রহে প্রাণের অস্তিত্ব খুঁজবেন এবং সম্ভাবনাও খুঁজবেন। তিন বছর বয়সেই এলিসা কার্টুন দেখে তার মনে মঙ্গলে যাওয়ার আশা তৈরি হয়েছিল।

বেঁচে থাকলে এলিসা তার স্বপ্নের ভ্রমণে যাবেন এক যুগের পর। সেই লক্ষে নিজেকে প্রস্তুত করছেন। ট্রেনিং নিচ্ছেন বিভিন্ন স্কিল শিখছেন।

২০৩৩ সালে মজ্ঞল গ্রহে প্রথম পা রাখতে যাচ্ছেন এলিসা
২০৩৩ সালে মজ্ঞল গ্রহে প্রথম পা রাখতে যাচ্ছেন এলিসা

এলিসাঃ

এলিসার জন্ম তারিখঃ যুক্তরাষ্ট্রের লুইজিয়ানার হ্যামন্ডে ২০০১ সালের ১০ মার্চ জন্ম গ্রহন করে অ্যালিসা।

এলিসার বর্তমান বয়সঃ ২০ বছর

এলিসার মায়ের নামঃ জানি না

এলিসার বাবার নামঃ বার্ট কারসন

এলিসা কারসনের ওয়েবসাইটঃ Nasablueberry